April 22, 2015

হারাইলো বাঙালি বড়ই যতনে...

১৪২২ বঙ্গাব্দ এসে গেল। প্রায় দেড় হাজার বছর! ভাবা যায়? এতগুলো বছরে বাঙালি কত কিছু পেল আর কতশত হারাল। বাঙালি থেকে Bong হল। তা এই Bong হওয়ার যাত্রায় ঠিক হারিয়েছি কী কী? The following list will let you know what we lost while transforming to Bong from বাঙালি... Keep discovering!

৬. That extra-sweet tooth: মাছ + মিষ্টি = বাঙালি। মাছ তো বুঝলাম কিন্ত‍ু মিষ্টির ভক্তি আমাদের কতটা আছে? “এত মিষ্টি আর ক্যালরী খেয়ে কী আর ফিগার ধরে রাখা যায়?” ভাবে আমার এক বান্ধবী। মাঝে মধ্যে চকলেট is ok. কিংবা মাসে একটা রসগোল্লা বা সন্দেশ। কিন্ত‍ু অতিরিক্ত ফিগার কনসাসনেসের চক্করে কোথাও না কোথাও আমাদের সেই excessively sweeeeeet tooth টা কোথাও হারিয়ে গিয়েছে। কী বলেন?
                  
ছবি সৌজন্য : গুগল বাবাজি
৫. আটপৌরে শাড়ি: গুজরাতি, মারাঠী, নর্থ-ইন্ডিয়ান সবারই নিজস্ব শাড়ির স্টাইল আছে। আর আমাদের? হ্যাঁ ছিল তো... আটপৌরে! কিন্ত‍ু বাড়িতে তো এখন ঠাকুমাও আর আটপৌরে শাড়ি পড়েন না। It may be a bit difficult to manage, but hey the style just looks awesome! Isn’t it?



৪. ময়দানে বইমেলা: বইমেলা আজও আছে, কিন্ত‍ু মিলন মেলায় ময়দানের এসেন্সটা আর পাইনা... ছোটবেলায় বইমেলা থেকে প্রিয় লেখকের বই কিনে যখন ভিক্টোরিয়া ঘুরতে যেতাম... দারুন লাগত।

৩. The joy of tram ride: এই পথ যদি না শেষ হয়... Sounds romantic? But when you’re stuck in the middle of a hopeless traffic jam, I’m sure you’ll beg to differ! তার উপর আবার তুমি ট্রামে চেপেছো। অনেকের কাছেই এটা দুঃস্বপ্ন। আমাদের আনন্দের ট্রাম রাইড কবে দুঃস্বপ্নে বদলে গেল টেরই পেলাম না... ট্রামে চড়ার সেই নির্ভেজাল আনন্দ কী আর পাব কোনদিন?
        

ছবি সৌজন্য : গুগল বাবাজি
২. Celebrated ধুতি: ব্যোমকেশ বাবুর ধুতি শুধু সিনেমার স্ক্রীনেই দেখা যায় এখন। আর বিয়েতে যা সবাই পড়ে তাতেও হাজার রকম প্রী-স্টিচড্ প্যাঁচ থাকে। Disappointing! ভাবো তো মেট্রোতে উঠেছো আর দেখলে সব ছেলেদের পড়নে ধুতি, teamed with shirts, t-shirts or kurtas. কেমন হবে?

ছবি সৌজন্য : গুগল বাবাজি                    
১. ভাষা: “তুমি বাংলা জানো? লিখতে পারো? পড়তেও?” কলেজে প্রচুর শুনেছি এসব প্রশ্ন। কনভেন্ট এডুকেটেড সব “বাঙালি” বন্ধুরা আমাকে রীতিমত চিড়িয়াখানার বাঘের মতই ট্রীট করত যখন তাঁরা শুনত আমি বাংলা জানি। সে যতই শেক্সপীয়ার গুলে খাইনা কেন, বাঙালি হয়ে যদি সত্যজিৎ রায়কেই না বুঝলাম তাহলে আর করলাম কী! কিন্ত‍ু দুর্ভাগ্য... বাংলা না জানাটাই এখন সবচেয়ে বড় কেতা। সেই বিশুদ্ধ বাংলা বচনের দিন আর মনে হয় কলকাতায় দেখতে পাব না...


Unfortunately the list is incomplete! আরও অনেক কিছুই আছে যা মানুষ হিসাবে, বাঙালি হিসাবে আমরা রোজ হারাচ্ছি। আশা করি হারানো সেই আবেগের অভাব আমরা নতুন উদ্দীপনা দিয়ে পুরণ করতে পারব। Fingers crossed…

No comments:

Post a Comment